মাহমুদ আল আজাদ হাটহাজারী প্রতিনিধিঃ
গত তিন দিনে টানা বর্ষণে ও পাহাড়ী ঢলে তীব্র ¯্রােতে হাটহাজারীর বিভিন্ন এলাকার নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। পানি বন্ধি হয়ে আছে প্রায় লক্ষাধিক পরিবার। যাতায়াত সড়ক পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় নিত্যপ্রয়োজনে হাটবাজারে আসা যাওয়া বন্ধ হয়ে গেছে। জনচলাচলের রাস্তাঘাট ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। পাহাড়ী ঢলের তীব্র ¯্রােতে বির্স্তৃণ নিম্মাঞ্চল এলাকার মানুষের সাথে সদরের সড়ক মহা সড়কের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছে পানি বন্ধি পরিবারগুলো। কিছু কিছু স্থানে নৌকা দিয়ে যাতায়াত করতে দেখা গেছে। প্রবল বর্ষণে মহা সড়কের বিভিন্ন দিক দিয়ে পানি স্রোত বেঁয়ে যেতে দেখা গেছে। পুকুরে চাষ করা মাছ পানির সাথে ভেঁসে গেছে। এদিকে পাহাড়ী ঢলের চাপ প্রয়োগে খালের পাড় ভেঙে বিভিন্ন এলাকার ফসলি ক্ষেত সহ তলিয়ে গেছে পানির নিচে । হতাশা হয়ে পড়েছে কৃষক পরিবারগুলো।

সরেজমিনে ঘুরে স্থানীয় বাসিন্ধারা জানান,হাটহাজারী উপজেলার ফরহাদাবাদ, ধলই, কাজী পাড়া, হাধুরখীল,পেশকার হাট, মির্জাপুর ইউনিয়ন এলাকার চারিয়া, কাজীপাড়া, ইছাপুর, মোজাফফর পুর, রহিমপুর, জাফারাবাদ,পৌর এলাকার মন্দরি ছড়া পাহাড়ী ঢলের তীব্র ¯্রােতে পাড় ভেঙ্গে আদর্শ গ্রাম, আলমপুর, খীল পাড়া, চন্দ্রপুর মিরের হাট, মীরের খীল ,উত্তর মাদার্শা,দক্ষিণ মাদার্শা, শিকারপুর, বুড়িশ্চর প্রভাতি এলাকায় ব্যাপক বন্যার পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। হালদার ভাঙ্গনে গুমানমর্দ্দন,লাঙ্গলমোড়া,পৌর এলাকার মুহাম্মদপুর,মেখল, ছিপাতলী, বোয়ালীয়ার কুল,গড়দুয়ারা ইউনিয়ন এলাকার পানির নিচে তলিয়ে গেছে। হালদার তীব্র জোয়ারের ¯্রােতে কিছু কিছু এলাকায় বাড়ীর আঙ্গীনায় পানি ঢুকে পড়েছে। তিন দিনের সৃষ্ট বৃষ্টিতে নিম্মাঞ্চল এলাকার দোকানপাট গুলোতে ও পানি লোকালয়ে ঢুকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। পাহাড়ী ঢল, অতিবৃষ্টিতে বন্যা সৃষ্টি হয়। লক্ষাধিক মানুষ গৃহবন্দীতে পরিণত হয়েছে ।
যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হওয়ায় নৌকায় একমাত্র ভরসা রাখতে হচ্ছে পানি বন্ধি পরিবারদের। ক্ষেতে খামার মুরগির ও মাছের অনেক খামার পানিতে ভাসিয়ে যায়। এতে লক্ষা টাকার পুকুরে চাষ করা মাছ ভেঁসে গেছে। ফসলের অনেক জমি অনাবাদীতে পরিনত হয়েছে। পানিবন্দী মানুষেরা জানান প্রতিবেদককে তাদের নানান সমস্যার কথা। গড়দুয়ারা ৯নং ইউনিয়নের ইউপি মহিলা সদস্যা জান্নাতুন নাঈম বলেন, আমার ৫নং ওয়ার্ডেও অধিকাংশ মানুষ পানি বন্ধি, আমার ঘরেও হালদার জোয়াড়ে পানি ঢুকে পড়ায় রান্নাবান্ন করতে হিমশিম পোহাতে হচ্ছে, ঘরের সামনেই জাল দিয়ে মানুষ মাছ ধরছে।

গড়দুয়ারা ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান জনাব মোঃ সরওয়ার মোরশেদ তালুকদার প্রতিবেদককে জানান, প্রবল বর্ষণে হাটহাজারীর নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় লক্ষাধিক পরিবার পানি বন্ধি হয়েছে। পাহাড়ী ঢলের তীব্র স্রোতে খালের পাড় ভেঙ্গে ফসলি জমির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। হালদার ভাঙনে ও জোয়ারের তীব্র ¯্রােতে গ্রামের লোকালয়ে সহ বাড়ীর আঙিনায় পানি ঢুকে পড়ায় দূর্ভোগে পড়ছে লক্ষাধিক পরিবার।পাহাড়ী ঢলের তীব্র স্রোতে খালের পাড় ভেঙ্গে ফসলি জমির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। প্রবল ¯্রােতের টানে হালদার ভাঙন বৃদ্ধি পেয়েছে।

এদিকে হাটহাজারী পৌর এলাকার মডেল থানার পাশ দিয়ে মরা ছড়াটিকে বর্তমানে উভয় পাশে পাকা দেওয়াল উপরে স্ল্যাব দিয়ে এই মরা ছড়াটি সম্পূর্ন রূপে ছোট একটি ড্রেন আকারে নির্মাণ করার ফলে বর্তমানে পাহাড়ী ঢল ও হাটহাজারীর বিভিন্ন নালা নর্দমার পানি নিষ্কাশন হতে পাচ্ছেনা। এতে করে পৌর বাজারের এখন পানি থৈ থৈ করছে। এদিকে নিম্নাঞ্চলের বাড়ী ঘরে বৃষ্টির পানি ও হালদা নদীর জোয়াড়ে পানি বিপদ সিমার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়ার ফলে গ্রামীণ লোকালয়ে পানি প্রবেশ করেছে। রান্নার কাজে হিমশিম খেতে হচ্ছে গ্রামীণ গৃহস্থিদের।

Share Button