চাঁদপুর সদর

জেলা বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের দোয়া ও আলোচনা সভা
ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের দুঃশাসনের জবাব দিতে হবে : আ. হামিদ মাস্টার

শরীফুল ইসলাম॥
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৭তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে চাঁদপুর জেলা বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার বিকেলে চাঁদপুর প্রেসক্লাবের দ্বিতীয় তলায় বিপুল সংখক দলীয় নেতাকর্মীর উপস্থিতিতে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। দোয়া পরবর্তী আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আ. হামিদ মাস্টার। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সংরক্ষিত নারী আসনের সাবেক এমপি আলহাজ্ব রাশেদা বেগম হীরা। বিশেষ বক্তার বক্তব্য রাখেন বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য শফিকুর রহমান ভূইয়া এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এসএম কামাল উদ্দিন চৌধুরী।

জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে ও জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী মো. ইব্রাহিম জুয়েলের পরিাচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি অ্যাড. ইকবাল বিন বাশার, অ্যাড. কামরুল ইসলাম, জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন খান বাবুল, বর্তমান কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক খলিলুর রহমান গাজী, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক শাহনেওয়াজ খান, সাবেক ছাত্র নেতা ও চাঁদপুর সরকারি কলেজের সাবেক জিএস হাজী মোশারফ হোসেন, জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক রাফিউস শাহাদাত ওয়াসিম পাটওয়ারী প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আঃ হামিদ মাস্টার বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ছিলেন এদেশের মাটি ও মানুষের নেতা। তিনি তার বলিষ্ট, নেতৃত্ব, যোগ্যতা, সততা এবং দেশ পরিচালনার মাধ্যমে এদেশের প্রতিটা মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। আজকে বাংলাদেশের প্রতিটা মানুষ এই মহান নেতাকে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার সাথে স্মরণ করছে।

তিনি আরো বলেন, জিয়াউর রহমান ছিলেন এদেশের বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা। তিনি বাকশাল থেকে দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনে সকল রাজনীতিক দলতে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছেন। অথচ আজকে অপরাজনীতির কারণে জিয়া পরিবারকে নিয়ে ষড়যন্ত করা হচ্ছে। বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাবন্দি করা হয়েছে। আর জিয়াউর রহমানের উত্তরসুরী তারেক জিয়াকে মিথ্যা মামলা দিয়ে দেশে আসতে দেয়া হচ্ছে না। কিন্তু যতই ষড়যন্ত্র করা হোক খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি রেখে এদেশে কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না। বিএনপির নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আবারো গণতন্ত্রকে পূনঃরুদ্ধার করবে।

চাঁদপুর জেলা বিএনপির উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এখন আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। আন্দল ছাড়া আর আমাদের কোনো পথ নেই। তাই দলকে সু-সংগঠিত করতে হলে ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। এজন্য চাঁদপুরে সকল নেতার্মীদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের দুঃশাসনের জবাব দিতে হবে।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে সংরক্ষিত নারী আসনের সাবেক এমপি আলহাজ্ব রাসেদা বেগম হিরা বলেন, আওয়ামী লীগ এদেশে অলিখিত বাকশাল কায়েম করেছে। তারা অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকতে এবং একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্টিত করার জন্য দেশী বিদেশী ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। সেই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে গণতন্ত্রের মা, সাবেক তিন বারের প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাবন্দি করেছে।
তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ বেগম খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তাকে ভয় পায়, তাই মিথ্যা মামলা দিয়ে তাকে কারাবন্দি করেছে। তারা দিনে দিনে জনগণের কাছ থেকে অনেক দূরে সরে যাচ্ছে। আর এজন্যই আরো একটি ভোট বিহীন নির্বাচন করতে বিভিন্ন এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে। আমরা এখন কেন্দ্রীয় নিদের্শনার অপেক্ষায় রয়েছি। কেন্দ্রীয় নির্দেশনার পরপরেই শহীদ জিয়ার আদর্শের প্রতিটা নেতাকর্মী রাজপথে ঝাপিয়ে পড়বে।
আলোচনা সভায় এছাড়া জেলা বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল ও সহযোগি সংগঠনের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বক্তব্য রাখেন। এর আগে পবিত্র কোরান থেকে তেলাওয়াতের মধ্যদিয়ে আলোচনা সভার কার্যক্রম শুরু হয়। সবশেষে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের রুহের মাগফেরাত কামনা এবং বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি ও তারেক রহমানের সুসাস্থ্য কমনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

Sharing is caring!

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares